অসহায় মানুষদের জন্য সিলেটে ‘মানবতার ঘর’

মানবতার ঘর

বিশ্বের প্রায় অধিকাংশ দেশে বিস্তার লাভ করা প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস এর প্রতিষেধক না থাকায় প্রতিরোধের উপরই জোড় দিতে বলছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। এজন্য ছোঁয়াচে এই রোগের প্রতিরোধ হিসেবে প্রথমেই বজায় রাখতে বলা হয়েছে সামাজিক দূরত্বকে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সেই নির্দেশনা মেনেই বিশ্বের অনেক দেশ লক-ডাউন করা হয়েছে। অনেক দেশেই চলছে কারফিউ। এর ব্যতিক্রম হয়নি বাংলাদেশও। দেশে গত ৮-ই মার্চ প্রথম করোনা রোগী সনাক্ত হওয়ার পর ২৬-এ মার্চ থেকে ৪-ই এপ্রিল পর্যন্ত অনানুষ্ঠানিক ভাবে লক-ডাউন চলছে। আজ বুধবার (০৪-০১-২০২০) এই ছুটি আবারো বাড়ানো হয়েছে। সব মিলিয়ে বর্তমান এই অবস্থা থাকবে আগামী ১১-ই এপ্রিল পর্যন্ত। এই সময়ের মধ্যে সরকারি-বেসরকারি সকল অফিস, দোকান-পাট, বাস-রেল সহ সবকিছুই বন্ধ থাকবে। তবে দীর্ঘদিন মানুষ ঘরবন্ধি থাকার ফলে খাদ্য সংকট দেখা দিতে পারে। সেজন্য সরকার প্রতিনিয়ত খাদ্য সামগ্রী বরাদ্দ দিচ্ছে। সরকারের পাশাপাশি এগিয়ে আসছে বিভিন্ন ব্যক্তি ও সংস্থা।

তবে যেহেতু করোনা ভাইরাস ছোঁয়াচে সেজন্য সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হয়। আর ত্রাণ বিতরণে বর্তমানে লোক সমাগম করা উচিৎ নয় বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য কর্মীরা। আর ছোঁয়াচে এই রোগের আতঙ্কে এখন অনেকে বাসায় গিয়ে ত্রাণ বিতরণ করতেও ভরসা পান না। সব মিলিয়ে কঠিন এক সময় যাচ্ছে।

তবে এই কঠিন সময়েও ভালো একটি উদ্যোগ নিয়েছে একটি সংস্থা। তারা সিলেট নগরীর ২৪নং ওয়ার্ডের হাজী হালু মাঝি জামে মসজিদ এর সম্মুখে ‘মানবতার ঘর’ নামে একটি ব্যতিক্রমী ঘর চালু করেছে। এই ঘর থেকে যার খাদ্য বা বস্ত্রের প্রয়োজন তিনিই প্রয়োজনীয় খাদ্য বা পোশাক নিয়ে যেতে পারবেন।

ন্যাশনাল প্রেস সোসাইটি (গণমাধ্যম ও মানবাধিকার সংস্থা) সিলেট বিভাগের শাখার উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত এই ‘মানবতার ঘর’ -এর উদ্বোধন মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) বাদ আসর করা হয়েছে।

উক্ত সংগঠনের পক্ষ থেকে জানানো হয়, এখানে রাখা থাকবে প্রতিটি খাদ্যের প্যাকেটে ২-কেজি চাল, আধা-কেজি ডাল, আধা-কেজি পেয়াজ, আধা-লিটার তেল, এক-কেজি লবণ এবং ২-কেজি আলু। খাদ্য সামগ্রীর পাশাপাশি থাকবে বিভিন্ন ধরণের কাপড়। যেকোনো হত দরিদ্ররা তাদের প্রয়োজনীয় দ্রব্য নিয়ে যেতে পারবে ষ্টীলের তৈরি এই ‘মানবতার ঘর’ থেকে।

সংগঠনের সিলেট বিভাগীয় কমিটির সভাপতি মোঃ জুম্মান জানান, ‘মানবতার ঘর’ প্রাথমিক ভাবে তারা নগরের ২৪ নম্বর ওয়ার্ডে চালু করেছেন। পর্যায়ক্রমে সিলেট নগরের প্রত্যেকটি ওয়ার্ডেই ‘মানবতার ঘর’ চালু করা হবে। যে কেউ এখানে খাবার ও কাপড় দিয়ে যেতে পারবেন। আমরা হতদরিদ্র ও সুবিধা বঞ্চিত মানুষের জন্য এটি তৈরি করেছি। সমাজের বিত্তবান মানুষেরা সহ সবাই হতদরিদ্র ও সুবিধা বঞ্চিত মানুষের জন্য এই উদ্যোগে আমাদের সহযোগিতা করবেন বলে আশা করি।

তিনি আরও জানান, কেউ খাদ্য ও কাপড় (নতুন কিংবা পুরাতন) দিতে চাইলে তারা বাসা থেকে তা সংগ্রহ করবেন। এ জন্য 01716543109 ও 01971399109 নাম্বারে যোগাযোগ করার জন্য বলা হয়েছে।

– নিউজ ডেস্ক / খলিফা নিউজ