ফেসবুক

তথ্য – প্রযুক্তির উন্নয়নের ফলে সবার নিকট এখন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম গুলো। আর সেই তালিকার প্রথম স্থান ফেসবুকের। তবে অনেকেই তাঁর ফেসবুক একাউন্টের পাসওয়ার্ড হ্যাক হওয়ার মত ঝামেলায় পড়েছেন। বিভিন্ন কারণেই আপনার ফেসবুক আইডির পাসওয়ার্ড চলে যেতে পারে অন্য কারোর নিয়ন্ত্রণে। তাই চলুন জেনে নেই কিভাবে ফেসবুক পাসওয়ার্ড হ্যাক হবার সম্ভাবনা থাকে এবং কিভাবে আপনি আপনার ফেসবুক একাউন্ট নিরাপদে রাখবেনঃ

১. একাউন্ট ফিশিং – এই প্রক্রিয়ায় হ্যাকার আপনাকে বিভিন্ন ভাবে বিভিন্ন লিংক পাঠাতে পারে। হয়তো আপনার ইমেইলে অথবা আপনার ফেসবুকের মেসেজের মাধ্যমে। যখনই আপনি সেই লিংকে ক্লিক করবেন তখন ঠিক ফেসবুকের মতই আরেকটি সাইটে আপনাকে নিয়ে যাওয়া হবে সেখানে আপনাকে বলা হবে আপনার ফেসবুকে লগইন করার জন্য। যখনই আপনি লগইন করার জন্য আপনার ইমেইল / মোবাইল নাম্বার এবং পাসওয়ার্ড দিবেন তখনই আপনার সকল ডাটা ফিশিং টুল এর মাধ্যমে ওই ওয়েবসাইটে সেভ হয়ে যাবে। আপনি সাইটিকে দেখে বুঝবেনই না যে এইটা ভুয়া বা ফেসবুক না। আর এই প্রক্রিয়াই হচ্ছে ফিশার ওয়েব / একাউন্ট ফিশিং।

সমাধানঃ কেউ কোন লিংক দিলে তা ভালো করে দেখুন, ট্রাস্টেড না হলে লিংকে ক্লিক করবেন না, আর ক্লিক করলেও https:// আছে কিনা দেখুন। লিংকে ক্লিক করার পর ফেসবুক লগিং করবেন না, বা ফেসবুক এর পপআপ আসলে Allow করবেন না।

২. ওয়েবসাইটের শেয়ার বাটন – কিছু ব্যক্তিগত ওয়েবসাইট আছে যেখানে শেয়ার বাটনে ক্লিক করা ঝুঁকিপূর্ণ। কারণ থার্ড পার্টি ওয়েবসাইটে ছবি শেয়ার করতে সেখানে যে অপশন থাকে সেখানে ক্লিক করলেও অনেক সময় আপনার একাউন্ট ও পাসওয়ার্ড হ্যাক হতে পারে।

সমাধানঃ ট্রাস্টেড সাইট না হলে কোনকিছু শেয়ার করবেন না।

৩. ফেইক বন্ধুত্ব – অনেক সময় দেখা যায় হ্যাকার আপনার তথ্য পাওয়ার জন্য ছদ্মবেশে আপনার সঙ্গে খুব ভালো সম্পর্ক গড়ে তোলে। আপনার বিভিন্ন গোপন তথ্য সংগ্রহ করতে থাকে। এক পর্যায়ে আপনাকে ইনবক্সে লিংক পাঠায়। এসব লিংকে না বুঝে ক্লিক করলেই শেষ! আপনার গোপন পাসওয়ার্ড এবং ইমেইল হ্যাকারের নিয়ন্ত্রণে চলে যাবে।

সমাধানঃ কেউ কোন লিংক দিলে তা ভালো করে দেখুন, ট্রাস্টেড না হলে লিংকে ক্লিক করবেন না, আর ক্লিক করলেও https:// আছে কিনা দেখুন। লিংকে ক্লিক করার পর ফেসবুক লগিং করবেন না, বা ফেসবুক এর পপআপ আসলে Allow করবেন না।

৪. সাইবার ক্যাফেতে লগ ইন করা – অনেকে শুধু মোবাইলে ফেসবুক চালাতে অভ্যস্ত। মাঝে মধ্যে কম্পিউটারেও বসেন বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করতে। এসব ক্ষেত্রে যারা পাবলিক কম্পিউটার ব্যবহার করেন, যেমন – সাইবার ক্যাফেতে যান, অনেক সময় তারা একাউন্ট লগইন করার পর বের হবার সময় লগআউট করতে ভুলে যান। অথবা অনেকেই লগইন করার সময়ে খেয়াল করেন না সেখানে রিমেম্বার পাসওয়ার্ড দেয়া রয়েছে। এভাবেও আপনার অজান্তে অন্য কেউ আপনার একাউন্ট এ প্রবেশ করে হ্যাক করে নিতে পারে।

সমাধানঃ আপনার একাউন্টে 2FA সিকিউরেটি অন করুন।

৫. ফেসবুক অ্যাপ / গেমস – ফেসবুকের মধ্যে বিভিন্ন অ্যাপ । গেমস আছে। এগুলো ব্যবহারের ক্ষেত্রে সব সময় সাবধান এবং সচেতন থাকা উচিত। অনেকেই এসব অ্যাপকে নিজের ইমেল একাউন্ট পাসওয়ার্ড সহ নানান ধরনের পারমিশন দিয়ে দেন। যা অনেক ক্ষেত্রেই এরা বিভিন্ন বিজ্ঞাপন সংস্থার কাছে বিক্রি করে দেয়। আর এইভাবেও আপনি হারাতে পারেন আপনার প্রিয় ফেসবুক একাউন্টটি।

সমাধানঃ যখন কোন অ্যাপ / গেমস আপনার কাছে পারমিশন চাইবে, তখন শুধুমাত্র পাবলিক ইনফরমেশন অ্যাক্সেস দিবেন। তাহলেই আপনার একাউন্ট থাকবে সুরক্ষিত।

-নিউজ ডেস্ক / খলিফা নিউজ